অসুস্থ হলে কোন দোয়া পরলে আপনি তারাতারি সুস্থ হবেন

পবিত্র কুরআন সর্বশেষ এবং সর্বশ্রেষ্ঠ আসমানী গ্রন্থির সঠিকতা ও পরিশুদ্ধতার ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই কেয়ামত পর্যন্ত কোরআনের রক্ষণাবেক্ষণ ও হেফাজতের দায়িত্ব নিয়েছেন স্বয়ং আল্লাহ সুবহানাহুওয়া তা’আলার প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন আমি কুরআন অবতীর্ণ করেছি এবং আমি তার সংরক্ষণকারী কুরআনের শিক্ষা মানুষের জন্য সহজ করে দেয়া হয়েছে কুরআনের সংস্পর্শে এসে মানুষ উন্নত ও সুখময় জীবনের সন্ধান পায় আল্লাহ তায়ালার অনুগ্রহ ও আত্মার প্রশান্তি অর্জনে কুরআন শিক্ষার কোন বিকল্প নেই।

কুরআনের শিক্ষা মানুষের জন্য সহজ

এ প্রসঙ্গে আল্লাহ তা’আলা বলেন হে মানবকুল তোমাদের কাছে উপদেশবানী এসেছে তোমাদের পরওয়ারদেগারের পক্ষ থেকে এবং অন্তরের নিরাময় হেদায়েত ও রহমত মুসলমানদের জন্য এই আয়াতে আল্লাহ পাক রব্বুল পষ্ট ভাবে কুরানকে মানুষের জন্য নিরাময়ের উপকরণ হিসেবে উল্লেখ করেছেন সুবহানাল্লাহ অথচ আজকের পৃথিবীতে আমরা কয়জন আছি যে অসুস্থতার জন্য কোরআনের দিকে ফিরে যাই আমরা কয়জন মানুষ আছে মেডিকেল ট্রিটমেন্ট এর পাশাপাশি আমরা কোরআনকে অবস্থান দেই কারন আমাদের দিন থেকে কোরআনের প্রতি সুধীর বিশ্বাস উঠে গেছে।

অসুস্থ হলে কোন দোয়া পড়লে আপনি তাড়াতাড়ি সুস্থ হবেন

কিন্তু আজ আমি আপনাদের সামনে এমন একটি সত্য ঘটনা উপস্থাপন করতে যাচ্ছি যে আপনার হৃদয়ে কম্পন সৃষ্টি হবে আপনি চোখ বন্ধ করে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের দরবারে শুকরিয়া জ্ঞাপন করবেন কারণ হয়তো বা আপনি এ বিষয়ে জানতে নোনা এমন ঘটনাটি আমাদের এই উপমহাদেশের একটি দেশে ঘটেছে আর তা হচ্ছে পাকিস্তানের লাহোরে আইসিইউ থেকে রোগীকে ভেন্টিলেটরে স্পেশাল কেড়ে নেয়া হয়েছে তারপরেও কোন উন্নতি নেই কিন্তু আল্লাহু একবার যখন থেকে সূরা আর রহমান তার কানের পাশে তেলোয়াত শুরু করা হয়েছে।

তখন থেকে তার মধ্যে ব্যাপক উন্নতি লক্ষ্য করে. ডাক্তাররা ডাক্তারদের ভাষ্যমতে আমাদের এমন অনেক রোগী আছে যারা ভেন্টিলেটরে থাকার পরেও কোনো উন্নতি হচ্ছে না কিন্তু যখন আমরা সূরা আর রহমান শুনানি শুরু করেছি তখন থেকে আমরা তাদের মাঝে অনেক উন্নতি দেখেছি শুধু তাই নয় অনেক মুসলিম হিন্দু খ্রিস্টান এমনকি নাস্তিক সহ অন্যান্য ধর্মাবলম্বী এমন পেশেন্ট আছে এই হাসপাতালে যাদেরকে ডাক তারা ইতিমধ্যে মৃত্যুর দিনক্ষণ বেঁধে দিয়েছেন আল্লাহু আকবার তারাও পবিত্র কুরআনের সূরা আর রহমানের থেরাপিতে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

বাচ্চাদের রোগ মুক্তির দোয়া

কোরআন শরীফ তেলাওয়াত শুনিয়ে মরণব্যাধির শেষ চিকিৎসা হচ্ছে একটি হাসপাতালে আর এতে ব্যাপক সাড়া পড়েছে এমনই এক অবাক করা ঘটনা ঘটেছে পাকিস্তানের লাহোরে একটি হাসপাতালে ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে শুরু করে ফেসবুক ইউটিউবে ভাইরাল হয়েছে এই সার্ভিস হাসপাতালের আইসিইউ ওয়ার্ডের চালু করা হয়েছে এখানে মুমূর্ষু রোগীদের সূরা আর রহমান এর মাধ্যমে চিকিৎসা দেয়া হয় দুপুর থেকে. শুরু করে সন্ধ্যা পর্যন্ত কারী বাসেত এর সুমধুর কন্ঠে সূরা আর রহমান শোনানো হয়ে থাকে।

কর্তব্যরত চিকিৎসক ও রোগীরা মনে করেন নিশ্চয়ই মনে হচ্ছে সর্ব রোগের শিফা আল্লাহ তাআলা কুরআনে বলেছেন আমি কোরআনে এমন বিষয় নাযিল করেছি যা রোগের সুচিকিৎসা এবং মুমিনদের জন্য হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা দেয়া এক ডাক্তার বলেন আমাদের এই পদ্ধতি প্রয়োগ করার ফলে অনেক ভালো ফলাফল পাচ্ছি আমরা আমাদের এমন অনেক রোগী আছেন যারা ভেন্টিলেটরে থাকার পরেও কোন উন্নতি আমরা দেখতে পাই নি কিন্তু কি অবাক করা ঘটনা সূরা আর রহমান এর তেলাওয়াত শুনে আমরা তাদের মধ্যে বৈপ্লবিক পরিবর্তন দেখেছি।

চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় আমরা এর কোনো ব্যাখ্যা দিতে পারবো না কিন্তু আমরা দেখেছি হিন্দু খ্রিস্টান a30 বিভিন্ন ধর্মাবলম্বী মানুষ যাদের ব্যবহারে কোন আশা নেই তারাও সূরা আর রহমান এর ধারাবাহিক তেলাওয়াতের মাধ্যমে তিনি ধীরে সুস্থ হয়ে উঠেছেন এবং তারা বেঁচে থাকার আশা. খুঁজে পাচ্ছেন তারা পরিপূর্ণ সুস্থতা পেয়েছেন সুবাহানাল্লাহ আল্লাহু আকবার ডাক্তাররা আরো বলেন কুরআনে আছে সর্ব রোগের শেফা আল্লাহ তাআলা কুরআনে বলেছেন আমি কোরআনে এমন বিষয় নাযিল করি যা রোগের চিকিৎসা এবং মুমিনদের জন্যে রহমত।

পরিবারের সুস্থতার জন্য দোয়া

তাই আমরা এখানে এসব রোগীদের প্রতিদিনই এর সূরা আর রহমান শুনিয়ে থাকে ডাক্তাররা নিজেরাও যারা খুব বেশি প্রাক্টিসিং মুসলিম ছিলেন না এ ঘটনা ঘটার পর থেকে তারাও হাসপাতালে প্রতিদিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ছেন এবং আল্লাহ পাকের দরবারে প্রতিদিন মোনাজাত করছেন রোগীদের শেফায়ে কামেলা জন্য এবং তারা নিজেরাও সূরা আর রহমান এর তেলাওয়াত দাড়ি রেখেছেন ডাক্তারদের কাছ থেকে আরো জানা যায় এমন অনেক রোগী ছিল যাদের চিকিৎসা বিজ্ঞানে আর বাঁচানো সম্ভব না কিন্তু পরে সুরা আর রাহমান থেরাপির মাধ্যমে তাদের অনেক সুস্থ হয়ে ওঠার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

অসুস্থ হলে কোন দোয়া পড়লে আপনি তাড়াতাড়ি সুস্থ হবেন

পবিত্র কুরআন মুসলমানের অমূল্য রত্ন মানবজাতির আলোকবর্তিকা কুরআনের বিশুদ্ধ তেলাওয়াত আয়ত্ত করা ও তার বিধান অনুসারে নামাজ. অন্যান্য দিন সঠিক ভাবে পালন করা প্রতিটি মুসলমানের একান্ত কর্তব্য এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ সুবহানাহুওয়া তা’য়ালা বলেন যারা আল্লাহর কিতাব পাঠ করে নামায কায়েম করে এবং আমি যা দিয়েছি তা থেকে প্রকাশ্যে ও গোপনে ব্যয় করে তারা এমন ব্যবসা আশা করে যাতে কখনো লোকসান হবে না সূরা ফাতির আয়াত 29 হযরত রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন তোমরা কুরআন পাঠ করুন।

অসুস্থ বাবার জন্য দোয়া

আল্লাহ তাআলা সেই অন্তর কি শান্তি দেবে নিয়ন্ত্রণ করেছে কোরআন হলো আল্লাহ তাআলার দস্তরখান যে ব্যক্তি তাতে প্রবেশ করল সে নিরাপত্তা লাভ করল এবং যে কোরআন কে প্রাধান্য দিল তার জন্য রয়েছে সুসংবাদ কিন্তু যার মাঝে কুরআনের কোন অংশ নেই অর্থাৎ যে কোরআন সম্পর্কে অজ্ঞ বা কুরআনের বিশুদ্ধ তেলাওয়াত শিখিনি তাকে অনাবাদি প্রতিপক্ষের সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে যে পতিত ভূমি ভাবির আর কারো উপকারে আসে না বরং অন্যের বিপদে ক্ষতির কারণ হয়।

হযরত আব্দুল্লাহ.আব্বাস রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেন হযরত রাসূলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যার মাঝে কোরআনের কোন অংশ নেই সে অনুবাদ ঘরের মতো বলে উল্লেখ করেছেন এটি তিরমিজি শরীফের হাদিস বিশুদ্ধভাবে কোরআন তেলাওয়াত না করলে সব এর পরিবর্তে গুনা হয় আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন এই কুরআনের মাধ্যমে আমাদের দুনিয়া আখেরাতের কল্যাণ অর্জন করার তৌফিক দান করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *