কুরসির ফজিলত সম্পর্কে সকল অজানা কথা জেনে নিন

আয়তুল কুরসী পাঠ কারী শয়তান ও জিনের অনিষ্ট থেকে নিরাপদ থাকে আয়াতুল কুরসির ফজিলত সম্পর্কে উবাই ইবনে কাব রাহমাতুল্লাহ আলাইহি এর পিতা তাকে বলেন আমার খেজুর ভর্তি একটি বস্তা ছিল এবং প্রতিদিন সেটা আমি পরিদর্শন করতাম কিন্তু একদিন কিছুটা খালি রেখে রাত জেগে পাহারা দিচ্ছিলাম হঠাৎ দেখতে পেলাম যুবক ধরনের কে একজন এল আমি তাকে সালাম দিলাম সালামের উত্তর দিল অতঃপর জিজ্ঞেস করলাম তুমি কি জিন ইনসান সে বলল আমি জিন

আমি বললাম তোমার হাতটা বাড়াও

আমি বললাম তোমার হাতটা বাড়াও তো সে বাড়ালে আমি তার হাতে হাত বোলায় হাতটা কুকুরের হাতের গঠনের মতো এবং কুকুরের লোম রয়েছে আমি বললাম সব জিন কি কি ধরনের সে বলল সব চীনের মধ্যে আমি সর্বপেক্ষা বেশি শক্তিশালী এরপর আমি তাকে যে উদ্দেশ্যে তুমি এসেছ তার তুমি কিভাবে সাহস পেলে সে উত্তরে বলল আমি জানি যে আপনি দান প্রিয় তাই ভাবলাম সবাই যখন আপনার নেয়ামতের দ্বারা উপকৃত হচ্ছে তাহলে আমি কেন বঞ্চিত হব অবশেষে তাকে জিজ্ঞেস করলাম তোমাদের অনিষ্ট হতে কোন জিনিস রক্ষা করতে পারে।

কুরসির ফজিলত সম্পর্কে সকল অজানা কথা জেনে নিন

সে বলল তা হল আয়াতুল কুরসি সকালে উঠে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু সাল্লাম এর কাছে গিয়ে রাতের ঘটনাটি বললে হুযুর সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম বললেন দুষ্টু শয়তান তো তোমাকে সঠিক কথাই বলেছেন সুবহানাল্লাহ এছাড়াও হযরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু একদিন দেখতে পেলেন একজন আগুন্তুক সৎকার মাল চুরি করছে তখন তিনি আগন্তুক এর হাত ধরে বললেন আল্লাহর কসম আমি তোমাকে আল্লাহর রাসূলের কাছে নিয়ে যাবো তখন আগন্তুক বলে সে খুব অভাবে আর তার অনেক টাকা পয়সার প্রয়োজন।

তাই দয়া করে হযরত আবু হোরায়রা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু তাকে ছেড়ে দিলেন পরদিন রাসূল সাল্লাল্লাহু সাল্লাম আবু হোরায়রা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু. গতকাল তোমার অপরাধীকে কেন ছেড়ে দিয়েছিলেন হযরত আবু হোরায়রা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু তখন তাকে ক্ষমা করার কথা উপস্থাপন করলেন রাসুল পাক সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম এর কাছে রাসূলুল্লাহ সাল্লাহু সাল্লাম বললেন অবশ্যই সে তোমাকে মিথ্যা বলেছে আর সে আবারও আসবে।

পরদিন আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু

পরদিন আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু অপেক্ষায় কখন ঝড় আসবে যখন সে আবার চুরি করতে আসলো তখন তিনি তাকে আবারও পাকরা করলেন আর বললেন এবার অবশ্যই আমি তোমাকে আল্লাহর রাসূলের কাছে নিয়ে যাবো কিন্তু এবারও সে বলল যে সে খুব অভাবে আর তার অনেক প্রয়োজন রয়েছে আর শপথ করে যে আর আসবেনা আবু হোরায়রা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু প্রতিবারই তার অনুনয়-বিনয় এর কাছে হার মেনে যায় পরদিন আবারও রাসূল সাল্লাহু সাল্লাম তাকে জিজ্ঞেস করলেন।

তোমার সেই চোর কি এসেছিল তখন তিনি বললেন যে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম সেতো আবারও এসেছিল এবং সে আবারও একই অভিযোগ দিল আর আমি তাকে ছেড়ে দিলাম মজার ব্যাপার রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম তাকে এবারও বললেন. আসলে সে তোমাকে মিথ্যা বলেছে আর সে আবারও আসবে কিন্তু রাসূল সাল্লাল্লাহু সাল্লাম এর কথা বলেননি যে সে আসলে তুমি তাকে আমার নিকট ধরে নিয়ে এসো পরদিন আবারও হযরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু চুরির জন্য অপেক্ষা করতে লাগলেন।

আর যখন সে চোর আবারো চুরি করতে আসলো তখন তিনি তাকে পাকড়াও করলেন আর বললেন এবার অবশ্যই আমি তোমাকে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম এর কাছে নিয়ে যাবো তুমি বারবার শপথ করো আর চুরি করতে আসো সে যখন দেখলো এবার সে সত্যিই রাসূল সাল্লাল্লাহু সাল্লাম এর কাছে নিয়ে যাবে তখন অবস্থা বেগতিক দেখে সে বলল আমাকে মাফ করো আমি তোমাকে এমন কিছু বলে দিব যার মাধ্যমে আল্লাহ তোমাকে কল্যাণ দান করবেন।

সে চোর আবারো চুরি করতে আসলো

আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু সেটা জানতে চাইলে জোর বলে যখন ঘুমাতে যাবে তখন আয়াতুল কুরসি পড়ে ঘুমাবে তাহলে আল্লাহ তোমার জন্য একজন পাহারাদার নিযুক্ত করবে যে ফেরেশতা পুরো রাত তোমার সঙ্গে থাকবে আর কোন শয়তান সকাল পর্যন্ত তার কাছে. পারবে না এমনকি চোর-ডাকাত যেকোন ধরনের অনুষ্ঠানে কে আল্লাহপাক তোমাকে রক্ষা করবেন এটা শুনে হযরত আবু হোরায়রা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু তাকে খুশি হয়েছে দিলাম।

কুরসির ফজিলত সম্পর্কে সকল অজানা কথা জেনে নিন

পরদিন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম আবার অপরাধের কথা জানতে চাইলেন তিনি আগের রাতের কথা বললেন এবং বললেন যে ইয়ারাসুলাল্লা অপরাধী তো আমাকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ এক আমল সম্পর্কে জানিয়ে গেল তখন রাসূল সাল্লাহু সাল্লাম বলেন যদিও সে চরম মিথ্যাবাদী কিন্তু সে সর্বশেষ তোমাকে একটি সত্য এবং গুরুত্বপূর্ণ আমলের কথা বলেছেন।  রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম আবু হোরায়রা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু কে বললেন তুমি কি জানো আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু বললেন না।

আমিতো জানিনা রাসূল সাল্লাল্লাহু সাল্লাম আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু কে ডেকে বললেন সে হচ্ছে শয়তান আবহাওয়া রাদিয়াল্লাহু বলেন অ্যাক্টিভিতিজ ইন আমাকে বলেছে যখন আপনি বিছানায় শুতে যাবেন তখন আয়াতুল কুরসির প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত পড়বেন তাহলে আপনি সেই রাতে এক মুহূর্তের জন্য আল্লাহর হেফাজতে. বুদ্ধ হবেন না আর সকাল পর্যন্ত শয়তানও আপনার নিকট ভর্তি হতে পারবে না উপরন্তু সেই রাতে যা কিছু হবে সব ই কল্যাণকর হবে পরিশেষে রাসূল সাল্লাহু সাল্লাম বললেন সে মিথ্যাবাদী হলেও এটাই সত্যি বলেছে।

তুমি দিনরাত কার সঙ্গে কথা বলেছিলে

তবে হে আবূ হুরায়রা জানো কি তুমি দিনরাত কার সঙ্গে কথা বলেছিলে আমি বললাম না রাসূল সাল্লাল্লাহু সাল্লাম বললেন সে ছিল শয়তান শুধু তাই নয় আয়তুল কুরসী পাঠ দ্বারা সোজা জান্নাতে যাওয়া যায় রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম বলেছেন প্রত্যেক ফরয সালাত শেষে আয়তুল কুরসী পাঠ গাড়ি জান্নাতে প্রবেশ করার জন্য আর কোনো বাধা থাকে না মৃত্যু ব্যতীত সুবহানাল্লাহ আয়তুল কুরসির ফজিলত জানলাম চলুন কোরআন শরীফের সর্বশ্রেষ্ঠ মহান সে আয়াতগুলোর অর্থ একবার জেনে নেই।

আল্লাহ তিনি ব্যতীত কোন উপাস্য নেই তিনি চিরঞ্জীব ও বিশ্বচরাচরের ধারক গুরুত্ব বা নিদ্রা তাকে পাকড়াও করতে পারেনা আসমান ও যমীনে যা কিছু আছে সব. দাড়ি মালিকানাধীন তার হুকুম ব্যতীত এমন কে আছে যে তার নিকট সুপারিশ করতে পারে তাদের সম্মুখে ও পিছনে যা কিছু আছে সব কিছু তিনি জানেন তাঁর জ্ঞান সম্মত হতে তারা কিছুই আয়ত্ত করতে পারে না কেবল যতটুকু তিনি ইচ্ছা করেন তা ব্যতীত তার কুরসি সমগ্র আসমান ও জমিন পরিবেষ্টন করে আছে আর সেগুলোর তত্ত্বাবধান তাকে মোটেও পরিশ্রান্ত করে না তিনি সর্বোচ্চ ও মহান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *